|

“অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ সমাজতন্ত্র তথা প্রকৃত গণতন্ত্রের ধারক ও বাহক”

পূর্ব পাকিস্তান ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) এর    মস্কো পন্থী অংশের সভাপতি ছিলেন অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ। তবে তিনি নিজেকে “কুঁড়েঘরের” মোজাফফর বলে পরিচয় দিতে ভালোবাসতেন। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালিন মজিবনগর সরকারের ছয় সদস্যের যে উপদেষ্টা পরিষদ গঠিত হয় তাদের মধ্যে একমাত্র জীবিত উপদেষ্টা অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ।

তিনি ১৯২২ সালের ১৪ ই এপ্রিল কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার উপজেলার এলাহাবাদ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ দেবিদ্বার রেয়াজউদ্দিন পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় হতে মাধ্যমিক এবং কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ হতে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী এবং ইউনেস্কো থেকে ডিপ্লোমা লাভ করেন।

অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ ১৯৫২ থেকে ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালেয়ে অর্থনীতি বিভিগে অধ্যাপনা করেন। পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালেয়র অধ্যাপনা ছেড়ে সম্পূর্ণ ভাবে রাজনীতির সাথে যুক্ত

হয়ে ১৯৭৯ সালের নির্বাচনে  সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। এবং ১৯৮১ সালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে তিনি ন্যাপ ও সিপিবির প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দিতা করেছিলেন।

অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ একজন প্রগতিশীল,মুক্তমনা ও সমাজসংস্কারক ব্যক্তিত্ব।

তার মূল উদ্দেশ্য ছিল, সমাজতন্ত্রের লক্ষে সংবিধানের মূলনীতি গুলোর ভিত্তিতে একটি অসাম্প্রদায়িক,গণতান্ত্রিক,জনকল্যানমূলক মানবিক রাষ্ট্র গঠন করা।

তার মূলমন্ত্র ছিল “ধর্ম-কর্ম গণতন্ত্রের নিশ্চয়তা সহ সমাজতন্ত্র”। পরবর্তীতে তার এই তত্ত্বটি তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়ন সহ সারা বিশ্বে সমাদৃত হয়।

তিনি মনে করেন, ততদিন দেশ বা জাতি উন্নতি করতে পারবে না, যত দিন দেশ বা জাতিতে উচুঁ-নিচু,ধনী-গরিব ভেদাভেদ থাকবে। শ্রেনী বৈষম্য তিনি  কখনোই পছন্দ করতেন না। সারা জীবন তিনি এর বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেগেছেন।

বাংলাদেশ সরকার ২০১৫ সালে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ কে স্বাধীনতা  পদক প্রদান করতে চাইলে তিনি তা নিতে অস্বীকৃতি জানান। তিনি মনে করেন রাজনীতি হচ্ছে মানুষের সেবা। পদ বা পদবি দিয়ে এর মূল্যায়ন করা সম্ভব নয়।

অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ  সমাজতন্ত্র তথা গরিব ও মেহনতি মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের লক্ষ নিয়ে রাজনীতি শুরু করেছিলেন। সেই  লক্ষ থেকে কখনোই সরেননি।আদর্শ ও নীতি ধরে আকঁরে আছেন অবিচল। জীবনের শেষ প্রান্তে এসে ও স্বপ্ন দেখেন এ দেশে গড়ে উঠবে শোষণমুক্ত সমাজ ব্যবস্থা। যে সমাজ ব্যবস্থার জন্য লড়াই করেছেন সারা জীবন।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.