|

জাজ এর বেতন-ভুক্ত নায়িকাদের নিয়ে বোমা ফাটালেন পরিমনি

জাজ মাল্টিমিডিয়া বাংলাদেশের অনেক বড় প্রভাবশালী একটি প্রতিষ্ঠান। বাংলাদেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে সর্বপ্রথম ডিজিটাল সিনেমা নির্মাণ করেন এই পরিচিত সুনামধর্মী প্রতিষ্ঠানটি। এই প্রতিষ্ঠানটিই  সবসময় নতুন নতুন মুখ নিয়ে কাজ করতে সাচ্ছন্দ্যবোধ করেন । এবং অপরিচিত মেয়েদেরকে নায়িকা হবার সুযোগ করে দিয়ে পরিচিত মুখে রূপান্তারিত করেন। তাদেরকে মূলত নায়িকা কেন্দ্রীক প্রতিষ্ঠানই বলা যায়। কারন তারা নায়কদের তুলনায় নায়িকাদেরকেই বেশি প্রাধাণ্য দেন। এবং নায়িকাদেরকে বেতনভুক্ত করে একটা নির্দিষ্ট সময়ের জন্য তাদেরকে মেয়াদ অনুসারে রাখা হয়। যখন কোনো নায়িকার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে তখন আর সেই নায়িকাকে দিয়ে নতুন করে আর সিনেমা নির্মাণ করেন না জাজ।

মাহিয়া মাহি: এই প্রতিষ্ঠানের হাত ধরেই ‘ভালোবাসার রং’ এর মাধ্যমে জাজের প্রথম নায়িকা হন মাহিয়া মাহি। শুরুটা যদিও ছিলো সৌভাগ্যের, কিন্তু শেষটা ছিলো কাদা মাটির মতো। কারন, এই নায়িকা  অভিনীত জাজ মাল্টিমিডিয়ার ছবিগুলো ছাড়া অন্য প্রতিষ্ঠানের ছবিগুলো তেমন আলোড়ন সৃষ্টি করতে পারেনি। জাজের সাথে দন্ধ্যের কারনে জাজ তাকে তাদের প্রতিষ্ঠান থেকে বের করে দেয়। কিন্তু তিনি জাজের বাহিরে তেমন কোনো হিট ছবি উপহার দিতে পারেননি।

নুসরাত ফারিয়া ও ফাল্গুনী জলি: জাজের ঘরে মাহিয়া মাহি থাকা অবস্থায়ই অভিষেক হয় ফারিয়া ও জলির। তাদের দুজনের মেয়াদ ছিলো পাঁচ বছর। কিন্তু পাঁচ বছর হবার আগেই দুটি ছবি করার পর জাজের ঘর থেকে বিদায় হন জলি। কারন তার অভিনীত দুটি ছবিই ব্যবসায়িকভাবে সফল হতে পারেনি। তাই তাকে জাজ থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। অপরদিকে, নুসরাত ফারিয়ার প্রথম ছবিই ছিলো যৌথ প্রযোজনার।  বাংলাদেশের নায়কদের পাশাপাশি কলকাতার জনপ্রিয় নায়ক জিৎ, অঙ্কুশের সাথে ছবি করেও তেমন জনপ্রিয়তা অর্জন করতে পারেননি তিনি। তাই তাকেও পাঁচ বছরের চুক্তি শেষ হবার আগেই জাজ থেকে বিদায় দিয়ে দেন।

পরিমনি: ‘রক্ত’ ছবি দিয়ে জাজে পা রাখেন পরিমনি। ছবিটা ছিলো পরিমনির ক্যারিয়ার বদলে দেওয়ার মতো। কিন্তু এ্যাকশন লেডি এই ছবিটি পরিমনির ক্যারিয়ার বদলে দিতে ব্যর্থ হয়েছে। তাই জাজের ঘরে ‘রক্তে’র পর দ্বিতীয় কোনো ছবিতে দেখা যায়নি তাকে।

পূজা চেরি রাই: জাজের সর্বশেষ নায়িকা এখন পূজা চেরি। এই প্রতিষ্ঠানে তিনি এ পর্যন্ত তিনটি ছবি করেছেন। তিনটি ছবির মধ্যে ‘নূরজাহান ও পোড়ামন২’ নামের  দুটি ছবি মুক্তি পেলেও নূরজাহান ব্যতীত পোড়ামন২ ছবিটি দর্শকদের হৃদয়ে দাগ লাগিয়ে দিয়েছেন। মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে ‘দহন’ ছবিটি।

জাজ মাল্টিমিডিয়া তাদের চুক্তি করা নায়িকাদেরকে অন্য কোনো প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ না করতে বাধ্য রাখেন। ফলে জাজের নায়িকারাও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে অফার আসা ভালো ভালো কাজকেও জাজের জন্য ছেড়ে দিতে হয়।

সম্প্রতি এসব নিয়ে বোমা ফাঁটালেন  হালের ক্রেজ পরিমনি।  জাজের সব নায়িকাদেরকে চাকুরীজীবি ও বেতনভুক্ত নায়িকা বলে দাবি করেছেন তিনি। মাহি, পরী, পূজা, ফারিয়া ও জলি নাকি জাজের চুক্তিবদ্ধ কারী নায়িকা ছিলেন। এটিএন বাংলায় প্রচারিত ‘ সেন্স অব হিউমার’ অনুষ্ঠানে এসে এ কথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে পরিমনি আরো বলেন, জাজে যারা কাজ করেন তাদের স্বাধীনতা বলতে কিছুই থাকেনা। জাজে কাজ করার সময় অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করা যাবে না। এবং জাজের বাহিরে কোনো কিছু করতে হলে জাজের অনুমতি ছাড়া করা যাবেনা। তাই পরিমনি জাজের সব নায়িকাকে চাকুরীজীবি বলে দাবী করেছেন।

 

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.