পুটু পিসিকে কেন বিয়ে করল না সুকল্যাণ? নেটিজেনদের তোপের মুখে জবাব বাদশার


এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: সুকল্যাণ কেন পুটু পিসিকে বিয়ে করল না? সকালবেলার লুচি আলুরদম থেকে রাতের মাংস ভাত অবধি বাঙালির মনে এই একটাই প্রশ্ন উঁকি দিচ্ছে। নেট পাড়ায়ও এই নিয়ে তুমুল হইচই। আসলে বাংলা ও বাঙালির জীবনের একটা অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হয়ে উঠেছে স্টার জলসার ‘খড়কুটো’ ধারাবাহিকটি। TRP র নিরিখেও অন্যদের দশ গোল দিয়ে ফেলেছে খড়কুটো। ধারাবাহিক শুরু হলেই ড্রয়িং রুমে গোটা পরিবার ৷ তারপর, ধারাবাহিক চলছে, দর্শকেরা হাত কামড়ে গল্পের প্লট নিয়ে মগজে শান দিয়েই চলেছে !

পুটু পিসি ওরফে সোহিনী সেনগুপ্ত যেন ঘরের মেয়ে। আর সুকল্যাণ ওরফে বাদশা মৈত্র যেন সকলের নজরে ভিলেন হয়ে উঠেছেন রাতারাতি। গল্পের মোড় অন্যদিকে ঘুরলেও বিয়ে না করার বিষয়টা এখনও মেনে নিতে পারছেন না নেটিজেনদের একাংশ। এই নিয়ে কী ভাবছেন বাদশা? এই সময় ডিজিটালকে খোলামেলা আড্ডায় জানালেন ধারাবাহিকের সুকল্যাণ । বাদশার কথায়, ‘দর্শকরা অবশ্যই মতামত জানাবেন। তাঁদের সেই অধিকার রয়েছে। আমি এটুকুই বলব যে টেলিভিশনের ক্ষেত্রে যে কোনও চিত্রনাট্য একটু বিশদেই ভাবা হয়। সিনেমার ক্ষেত্রে হয়ত এরকমটা হতো না। কিছুদিন গেলে বোঝা যাবে চরিত্রটা কী চায়, সে কী করছে, কেন করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অভিনেতা হিসেবে আমার কাজ চরিত্রকে ফুটিয়ে তোলা। সেটায় খামতি থাকলে অবশ্যই আমার দায়। কিন্তু চিত্রনাট্যের বিষয়টা তো আমার হাতে নেই।’ দর্শক খড়কুটোর প্রতিটি চরিত্রকে আপন করে নিয়েছে। সেই কারণেই কী এই টুইস্ট তাঁদের এতটা নাড়া দিয়েছে? উত্তরে সুকল্যাণ ওরফে বাদশা বলেন,’ সম্প্রতি একটি গ্রামে গিয়েছিলাম। সেখানেও আমাকে দেখে সকলে খড়কুটোর কথা বলছিলেন। আমাদের ধারাবাহিক যে মানুষকে এতটা ছুঁয়েছে সেটা দেখে খুবই ভালো লাগে। আমরা যে মানুষের এতটা কাছে পৌঁছে যেতে পেরেছি, এটা ভাবতে আমার খুবই ভালো লাগে।’

খড়কুটোর ফিল গুড দিক তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘এই সিরিয়ালের গল্পের মধ্যে জীবনকে অন্যভাবে দেখার একটা আঙ্গিক রয়েছে। সকলকে একসঙ্গে নিয়ে বাঁচব এমন একটা ব্যাপার রয়েছে। সকলে আনন্দ করে বাঁচার একটা বার্তা আছে। দর্শক যে এতটা ভালোবাসছেন ধারাবাহিককে সেটা একটা বড় পাওনা।’

‘খড়কুটো’-র হাঁড়ির খবর জানাচ্ছে বাবিন-গুনগুন, ঝট করে পড়ে ফেলুন
‘খড়কুটো’র কেন এভাবে চিত্রনাট্য কেন এভাবে লিখলেন লেখক? এ নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন নেটিজেনরা। এ প্রসঙ্গে বাদশার উত্তর, ‘আসলে যখন কোনও গল্প মানুষ পছন্দ করে তখন সেটাকে সম্প্রসারণ করতে হয় টেলিভিশনের ক্ষেত্রে। লেখিকা লীনা গঙ্গোপাধ্যায় অনেকদিন ধরেই ধারাবাহিক তৈরি করছেন। তিনি অভিজ্ঞ। আমাদের সৌভাগ্য যে এই গল্পকে দর্শক পছন্দ করছেন। আমার ধারনা তিনি দর্শকের মন বুঝেই গল্প এগিয়ে নিয়ে যাবেন।’

কলকাতা থেকে ‘খড়কুটো’ উড়ে চলল মুম্বইতে
এই সময় ডিজিটালের লাইফস্টাইল সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে



Continue Reading

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.