|

প্রিয় কলকাতা, দয়া করে বাংলাদেশিদের নামের বানান ঠিক লিখুন

বাংলাদেশের শিল্পী ও সাহিত্যিকদের নামের বানান ভুল করা কিংবা ভুল উচ্চারণে বলা আপনি যে দেশেরই হোন না কেন, যে সংস্কৃতিরই হোন না কেন। নামের বানান ভুল করা উচিত? নিজেদের মত করে একটি নামের বানান লিখে ফেললেন অমনি হয়ে গেল!

গত ১৮ অক্টোবর সকালে বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান আইয়ুব বাচ্চু। এরপর ২১ অক্টোবর কলকাতার জি বাংলার রিয়েলিটি শো ‘সা রে গা মা পা’ তে আইয়ুব বাচ্চুকে স্মরণ করা হয়। এবার চ্যানেলটি এই কিংবদন্তি সংগীতশিল্পীর জন্য একটি পর্বের বিশেষ আয়োজন করে। এই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিযোগী মাইনুল ইসলাম নোবেল গেয়েছেন আইয়ুব বাচ্চুর ‘এই রূপালি গিটার’ গানটি। শুরুটা করেন কলকাতার জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী অনুপম রায় ‘সেই তুমি’ গান গেয়ে। আয়োজনের শেষটাও হয় এই গান দিয়ে। আইয়ুব বাচ্চুর গানে একপর্যায়ে অংশ নেন রূপঙ্কর, ইমন, অনুপম, নোবেল, প্রতিযোগিতার দুই বিচারক শ্রীকান্ত আচার্য ও শান্তনু মৈত্র। অনুষ্ঠানটির উপস্থাপক যীশু সেনগুপ্ত ড্রামস বাজিয়েছেন। সবটাই প্রশংসার দাবিদার। কিন্তু দাদারা নামটা কেন ভুল করেন? আইয়ুব বাচ্চুর অসংখ্য ভক্ত ও অনুরাগী ওপার বাংলায় রয়েছেন। জীবদ্দশায় সেখানে তিনি অসংখ্য কনসার্টে অংশ নিয়েছেন। এছাড়া অনলাইনে মাউসের এক ক্লিকেই আইয়ুব বাচ্চুর নামের সঠিক বানান খুঁজে পাওয়া কষ্টকর নয়। তারপরও গণমাধ্যমে এ কেমন ভুল?

বিশ্বে ভাষার ভিন্নতা রয়েছে। আবার একই ভাষার হলেও আঞ্চলিকতার কারণে উচ্চারণে ভিন্নতা থাকে। তবে নাম লেখার ক্ষেত্রে ব্যক্তি যেভাবে লিখে থাকেন সেটি গুরুত্ব পায়। সেক্ষেত্রে উচ্চারণে কিছু পার্থক্য সহনীয় এবং গ্রহণযোগ্য। কিন্তু বাস্তবতা হলো- এই নাম, বিশেষ করে শোবিজ অঙ্গনের তারকাদের নাম লেখার ক্ষেত্রে বারবার বিকৃত করে প্রকাশ করছে ওপার বাংলার গণমাধ্যম। ঐতিহাসিক ব্যক্তিদের নামও তারা বিকৃত করে নিজেদের ইচ্ছেমত ব্যবহার করেন।

ওপার বাংলায় নামের বানান ভুল নতুন কিছু নয়। হোসেন শহীদ সোহ্‌রাওয়ার্দীর নামের বানান ভুল লিখতো নিয়মিত। কিংবদন্তি শিল্পী নায়ক রাজ রাজ্জাক দুই বাংলায় সমানভাবে জনপ্রিয় ছিলেন। দুই বাংলার চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। কিন্তু তার নামের বানানও কলকাতার শীর্ষস্থানীয় পত্রিকাগুলো ‘রেজ্জাক’ লিখেছে। এমনকি তার মৃত্যুর খবরটিও সেভাবে প্রকাশ করেছে। এছাড়া কবরীর নাম ‘করবী’ লিখতে দেখা গেছে। বর্তমানে জয়া আহসান দুই বাংলায় অভিনয় করছেন। কলকাতার সংবাদ মাধ্যমে তার নাম নিয়মিত লেখা হচ্ছে ‘জয়া এহসান’। শোনা যায় এ নিয়ে তিনি একাধিকবার প্রতিবাদ করেও কোনো ফল পাননি। এছাড়া চিত্রনায়ক ফেরদৌসের নাম কলকাতায় লেখা হতো ‘ফিরদাউস’। ফেরদৌস এ নিয়ে নিয়মিত আপত্তি জানিয়েছেন। তিনি নাকি একসময় কথা বলার শুরুতেই বলে নিতেন আমার নাম ফেরদৌস লিখলেন কথা বলতে পারি।। শমী কায়সারের নাম লেখা হয় ‘শোমি কায়সার’। এমন আরো কিছু শিল্পীদের নাম ভুল বানানে লেখা হচ্ছে যা লজ্জাজনক ও বিব্রতকর। এটা এখনি বন্ধ করা উচিত। নামের বানান ভুল রীতিমতো অপরাধের পর্যায়ে পরে।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.