প্লাজমা থেরপির দ্বিতীয় ডোজ পেয়ে ভালো আছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়


হাইলাইটস

  • একটু ভালো আছেন টলিউডের প্রবীণ অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়।
  • তিনি যে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তারা বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, প্লাজমা থেরাপির দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার পর আগের থেকে ভালো আছেন অভিনেতা।

এই সময় বিনোদন ডেস্ক: একটু ভালো আছেন টলিউডের প্রবীণ অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়। তিনি যে বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তারা বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, প্লাজমা থেরাপির দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার পর আগের থেকে ভালো আছেন অভিনেতা।

আগে তাঁর প্লাজমা থেরাপি করা হয়েছিল। ফের রবিবার প্লাজমা থেরাপির দ্বিতীয় ডোজ দিতে হয় তাঁকে। রবিবার চিকিৎসকরা জানান, শ্বাসপ্রশ্বাস ও রক্তচাপ স্বাভাবিক রয়েছে তাঁর। ১২জন চিকিৎসকের একটি দল তাঁকে প্রতিনিয়ত পর্যবেক্ষণ করছে। তাঁর অক্সিজেন স্যাচুরেশন মাত্রা এখন স্বাভাবিক অবস্থায় আনা সম্ভব হয়েছে।

জানানো হয় যে, বর্ষীয়াণ অভিনেতার শরীরে পটাশিয়ামের মাত্রা এখনও বেশ কম রয়েছে। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় এখনও হাই রিস্ক জোনে রয়েছেন। এতেই রাতে উদ্বেগ বাড়ে সিনেপ্রেমীদের মধ্যে। তবে সোমবার সকালে কিছুটা ভালো খবর শোনায় হাসপাতাল। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, প্লাজমা থেরাপির দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার পর আগের থেকে অনেকটা ভালো আছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্য়ায়। তাঁর অক্সিজেন স্যাচুরেশন ১০০%-এর কাছাকাছি আছে। তাঁর শরীরের অস্থিরতা কমেছে। তাঁর ভাইটাল প্যারামিটারগুলি স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিত্‍‌সকরা। গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলিও ঠিকমতো কাজ করছে। সোমবার তাঁর মস্তিষ্কে MRI করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

করতে হল দ্বিতীয় বার প্লাজমা থেরাপি, এখন কেমন আছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়?

শনিবার দুপুরে সৌমিত্র-কন্যা নাট্যকর্মী পৌলমী বসু একটি পোস্ট করেছিলেন। তিনি লেখেন, ‘বাবার শারীরিক পরিস্থিতি এখন স্থিতিশীল। শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ-প্রত্যঙ্গও নর্ম্যালি কাজ করছে। অক্সিজেনের অভাবও হচ্ছে না আপাতত। রক্তচাপও স্বাভাবিক রয়েছে বাবার।’

‘ভিড়ে নয়, পুজো কাটুক ঘরে!’ সংক্রমণ বেলাগামের আশঙ্কায় উৎসব নিয়ে সতর্কতা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

টলিউড সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ৩০ সেপ্টেম্বর সৌমিত্র একটি ডকু-ফিুচারের জন্য শুটিং করেছিলেন ভারতলক্ষ্মী স্টুডিয়োয়। সে দিন বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ শুটিং শুরু হয়। দুপুর পৌনে ১টা নাগাদ ইউনিটের এক কর্মীকে সৌমিত্র জানিয়েছিলেন, একটু তাড়াতাড়ি করলে ভালো হয়, তাঁর শরীরটা খারাপ লাগছে। সে দিনই সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের করোনা-উপসর্গ ধরা পড়ার প্রথম দিন। অনেক চিকিৎসকই জানিয়েছেন, ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যাঁরা প্রবীণ অভিনেতার সংস্পর্শে এসেছিলেন, তাঁদের সবার ১৪ দিনের সেল্ফ আইসোলেশনে থাকা ও করোনা পরীক্ষা করানো উচিত।

নতুন রেকর্ড করোনার সংক্রমণে, মৃত আরও ৫৯! শপিং-আনন্দে মাতার আগে দু’বার ভাবুন

এই সময় ডিজিটাল এখন টেলিগ্রামেও। সাবস্ক্রাইব করুন, থাকুন সবসময় আপডেটেড। জাস্ট এখানে ক্লিক করুন



Continue Reading

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.