|

শাকিব খানের জানা-অজানা মজার মজার সত্য তথ্য

প্রথম ছবি

প্রথমে চুক্তিবদ্ধ হোন আফতাব খান টুলু পরিচালিত ‘সবাই তো সুখী হতে চায়’ ছবিতে। মুক্তি পাওয়ার সুবাদে শাকিব খানের প্রথম ছবি হিসেবে ধরা হয় সোহানুর রহমান সোহান পরিচালিত ‘অনন্ত ভালোবাসা’কে।

মান্নার সঙ্গে টক্কর

২০০৬ সালে শীর্ষ নায়কের আসনে শাকিব খান এলে পিছিয়ে যান মান্না। দুই নায়কের পেশাগত প্রতিদ্ব›িদ্বতায় জমে ওঠে ইন্ডাস্ট্রি।

প্রথম হিট

ক্যারিয়ারে প্রথম হিটের স্বাদ পান দেলোয়ার জাহান ঝন্টু পরিচালিত ‘বিষে ভরা নাগিন’র কারণে। ছবিতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন মুনমুন। মুনমুনের সঙ্গেও শাকিব খানের এটাই প্রথম কাজ।

প্রথম গুঞ্জন

‘দুজন দুজনার’ ছবি করার সময় পপির সঙ্গে তার প্রেমের গুঞ্জন ওঠে। ইন্ডাস্ট্রিতে এসে মুখরোচক আলোচনার বিষয় হয়ে ওঠেন শাকিব খান।

প্রথম গান গাওয়া

২০১১ সালে মালেক আফসারী পরিচালিত ‘মনের জ্বালা’ ছবিতে প্রথম মাইক্রোফোনের পেছনে দাঁড়ান শাকিব খান। ‘আমি চোখ তুলে লাকালে সূর্য লুকায়’ গানটির সুরকার ছিলেন আলী আকরাম শুভ।

সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক

২০০৮ সালে ৩৫ লাখ পারিশ্রমিক নিয়ে চলচ্চিত্র শিল্পের ইতিহাসে নতুন রেকর্ডের জন্ম দেন শাকিব খান। কিছুদিন আগে একটি ছবিতে ৫০ লাখ টাকা নিয়েছেন বলেও শোনা গেছে। এই পরিমাণ অঙ্কের পারিশ্রমিক আজ অবধি কেউ নিতে পারেননি।

 একদিনে চার ছবি মুক্তি

২০০৮ সাল থেকে রেকর্ড গড়তে শুরু করেন শাকিব খান। ঈদের দিন তার অভিনীত চারটি ছবি মুক্তি পায়। বেশ কয়েকটি ঈদে এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে। প্রায় হাজার সিনেমা হলে ঈদে তার ছবি চলে।

প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার

২০১০ সালে প্রথম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান শাকিব খান। ‘ভালোবাসলেই ঘর বাঁধা যায় না’ তাকে শ্রেষ্ঠ অভিনেতার সম্মান এনে দেয়।

অসুস্থতা

২০০৮ সালে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন শাকিব খান। চিকিৎসার জন্য যেতে হয়েছিল থাইল্যান্ড অবধি। তখন থেকেই তার অসুস্থতা চিন্তার কারণ হয়েছে নির্মাতাদের।

সবচেয়ে ব্যবসা সফল ছবি

মাসের পর মাস সিনেমা হলে একটানা তার অভিনীত যে ছবি চলেছে তার নাম ‘প্রিয়া আমার প্রিয়া’। শাকিব-সাহারা জুটির ম্যাজিক ফুরোতে সময় লেগেছে অনেক। বদিউল আলম খোকন পরিচালিত এ ছবিটি শাকিব খানের ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় হিট। মুক্তি পায় ২০০৮ সালের জুন মাসে।

 নিষিদ্ধ নিষিদ্ধ খেলা

গত বছর চলচ্চিত্র পরিবার নিষিদ্ধ করে শাকিব খানকে। যা দেশজুড়ে আলোচিত-সমালোচিত হয়েছিল। তবে এর আগেও ২০১০ সালে শিডিউল ফাঁসানোয় নিষিদ্ধ হয়েছিলেন শাকিব খান ও তার সহশিল্পী অপু বিশ্বাস। সেই নিষোধাজ্ঞা যদিও খুব অল্প সময়ের মধ্যে উঠিয়ে নেয়া হয়। এবার শিল্পী সমিতির নির্বাচনের রাতে শাকিব খানের ওপর হামলা করা হয়। তিনিও নিরাপত্তা চেয়ে জিডি করেন তেজগাঁও থানায়। আর পাল্টাপাল্টি বক্তব্যেও ছিল তার সরব অংশগ্রহণ। যার রেশ এখনো পুরোপুরি কাটেনি।

ডিপজলের সঙ্গে বিরোধ

২০০৬ সালে চাচ্চু, কোটি টাকার কাবিন, দাদিমা এবং পিতার আসন ব্যবসা সফল হলে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির এক নম্বর নায়কে পরিণত হোন শাকিব খান। এই ছবিগুলোর প্রযোজক ছিলেন ডিপজল। একটি মামলায় কারাবন্দি হন। জেল থেকে ফিরে এসে আর কখনো শাকিব খানের ছায়া মাড়াননি।

শাবনূর-পপির সঙ্গে ভাঙন

ক্যারিয়ারের প্রথমদিকে এই নায়িকাদের সঙ্গে জুটি গড়েই ক্যারিয়ার পোক্ত করেছিলেন শাকিব খান। কিন্তু যখন এই নায়কের বাজার রমরমা, তখন তাদের সঙ্গে আর জুটিবদ্ধ হতে দেখা যায়নি তাকে। শাবনূর-পপির সঙ্গে দূরত্ব আলোচনার খোরাক হয়েছে ইন্ডাস্ট্রির।

আলোচিত বিজ্ঞাপন

২০১৪ সালে একটি এনার্জি ড্রিংক্সের বিজ্ঞাপনে দেশজুড়ে দেখা যায় প্রিয় নায়কের মুখ। সঙ্গে ছিলেন নায়িকা ববি। তবে এর আগেও তিনি বিজ্ঞাপনচিত্র করেছেন। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে শাবনূরের সঙ্গে ফেয়ারনেস ক্রিমের বিজ্ঞাপন করেছিলেন।

বিয়ের পিঁড়িতে

তখন তারা দর্শকনন্দিত জুটি। সিনেমায় চূড়ান্ত ব্যস্ততা। ওই অবস্থায় একরকম পরিবারের অমতেই ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল শাকিব খান সংগোপনে বিয়ে করেন অপু বিশ্বাসকে। কাছের কয়েকজন ছাড়া কেউ ছিলেন না এই বিয়েতে। যে বিয়ের কথা প্রকাশ হয় প্রায় দশ বছর পর।

সবচেয়ে বাজে দিন

অবন্তী বিশ্বাস অপু থেকে ধর্মান্তরিত হয়ে অপু ইসলাম খান নাম নিয়ে শাকিব খানকে বিয়ে করেন। ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর কলকাতায় শাকিব-অপুর সন্তান আব্রাম খান জয়ের জন্ম হয়। এই তথ্যগুলো বোমার মতোই দেশজুড়ে ফাটে। আরো কিছু অভিযোগে শাকিব খানকে জর্জরিত করে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে লাইভে আসেন অপু বিশ্বাস। ২০১৭ সালের ১০ এপ্রিল দিনটিকে জীবনের সবচেয়ে বাজে দিন বলে মন্তব্য করেছিলেন শাকিব খান।

মৌসুমীর ভাই

একই সময়ে ইন্ডাস্ট্রি দাপিয়ে বেড়ালেও দুজনের জুটি গড়ে ওঠেনি বয়সের ব্যবধানের কারণে। তবুও তারা জুটি গড়েছিলেন ‘তুই যদি আমার হইতিরে’ ছবিতে। ছবিটি একেবারে চলেনি। দুজনে ভাই-বোনের চরিত্র করলে হিট হয় ‘এক বুক জ্বালা’ ও ‘সাহেব নামে গোলাম’।

বুবলী অধ্যায়

জনপ্রিয় পর্দা জুটি শাকিব-অপুর বিকল্প যখন খোঁজা হচ্ছিল তখনই শবনম বুবলীর দৃশ্যপটে আত্মপ্রকাশ। ২০১৬ সালে একদিনে দুই ছবি (বসগিরি ও শুটার) মুক্তির সঙ্গে সঙ্গে যাত্রা শুরু হয় শাকিব-বুবলী জুটির। গত বছর আরো দুটি ছবিতে অভিনয় (অহংকার ও রংবাজ)। ‘রংবাজ’ ছবির নায়িকা হওয়া নিয়ে অপু-বুবলী দ্ব›েদ্বর সূত্রপাত। যার শেষ হলো শাকিব খানের সঙ্গে অপুর বিচ্ছেদের বিয়োগান্তক ঘটনায়।

কাফনের কাপড় পরে আন্দোলন

কাফনের কাপর পরে রাজপথে আন্দোলনে নেমে ভীষণ আলোচিত হয়েছিলেন শাকিব খান। শিল্পী সমিতির নির্বাচনের অব্যবহিত পূর্বে ভারতীয় ছবি আমদানির বিরুদ্ধে তার আন্দোলনে শরিক হয়েছিল চলচ্চিত্রের অন্যান্য সংগঠনও। শীর্ষ নায়কের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন অন্য তারকা শিল্পীরাও। ঘটনা ২০১৪ সালের।

ভারতে প্রবেশ

২০১৬ সালে যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘শিকারী’ খুলে দেয় তার জন্য এক নতুন দুয়ার। দেশে সব শ্রেণির দর্শককে মুগ্ধ করেই ফুরিয়ে যাননি। এ ছবির সাফল্যে টালিগঞ্জের নির্মাতাদের কাছেও চাহিদা তৈরি করেন শাকিব খান।

বিবাহ বিচ্ছেদ

গোপন বিয়ের ও সন্তানের খবর প্রকাশের পর থেকেই শাকিব-অপু দ্ব›দ্ব আসে প্রকাশ্যে। চলতে থাকে পাল্টাপাল্টি বক্তব্য। মিডিয়ায় তুলকালাম। শাকিব খানের বিবাহ বিচ্ছেদের আবেদনের খবরে ওঠে ঝড়। বিচ্ছেদ ঠেকাতে অপুর কাকুতি মিনতিও আলোচনার বাইরে থাকে না। অনেক নাটকীয়তার পর গত ১২ মার্চ শাকিব-অপুর দশ বছরের গোপন সংসারের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটে।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.