শিবু-রুমি ও তাঁদের মধ্যবিত্ত প্রেম-জীবনে বাজিমাত ‘সুইৎজারল্যান্ড’-এর!


হাইলাইটস

  • এই গল্পটা একেবারই অন্যরকম নয় বরং অতি সাধারণ মধ্যবিত্ত জীবন যাপনের গল্প।
  • হ্যাঁ, এই জুটি নিয়ে ইতোমধ্যেই টলিউড ইন্ডাস্ট্রি ও সাধারণ মানুষ খুবই উৎসাহী।
  • এই ধরনের নতুন ফ্রেশ কনটেন্ট পরপর এনে তিনি চমকে দিয়েছেন দর্শককে।

এই সময় বিনোদন ডেস্ক: জিৎ ফিল্ম ওয়ার্কসের নতুন ছবি ‘সুইৎজারল্যান্ড‘-এর মুক্তি পেয়েই বেশ জনপ্রিয় হয়েছে। ছবির পুজোর গান সুপার হিট। ছবির পরিচালক সৌভিক কুন্ডু দাবি করছেন, এই গল্পটা একেবারই অন্যরকম নয় বরং অতি সাধারণ মধ্যবিত্ত জীবন যাপনের গল্প। আর সেখানেই বাজিমাত করেছে দর্শকের প্রত্যাশা।

পরিচালকের কথায়, পাড়ার বাপিদা হরিদার মতোই গল্পের নায়ক হল শিবু। বিভিন্ন ধরনের গোয়েন্দাগিরির পাঠ চুকিয়ে আবীর চট্টোপাধ্যায় এবার নিপাট সাদাসিধে মধ্যবিত্ত বাঙালি সেলসম্যান। আবীরের স্ত্রীর ভূমিকায় চমক রয়েছে রুক্মিণী মৈত্রের। হ্যাঁ, এই জুটি নিয়ে ইতোমধ্যেই টলিউড ইন্ডাস্ট্রি ও সাধারণ মানুষ খুবই উৎসাহী। তাঁদের অন-স্ক্রিন কেমিস্ট্রি দেখার মতো, খুবই ফ্রেশ দেখাচ্ছে এই জুটিকে। আর মজার ব্যাপার এই দুজনের গালেই টোল পরে।’

যদিও রুক্মিণীর দাবি, তাঁর গালে টোলটাই আসল, আবীরেরটা কাটা দাগের এক্সটেন্ডেড পার্ট। আর এই নিয়ে দু’জনের মধ্যে মজা খুনসুঁটি চলছেই। সুইৎজারল্যান্ড ছবিটাও খুব মজার ছলে সরলভাবে জীবনের কথা বলে, মধ্যবিত্ত মূল্যবোধের কথা বলে। আবিরের কথায়, ‘আর খানেই এই ছবিটির মজা। মূল্যবোধ ও আদর্শের কথা বললেও এই ছবি কখনওই জ্ঞান দেওয়ার রাস্তায় হাঁটে না।’ ছবির কাস্ট নিয়ে কথা বলতে গেলে আবীর-রুক্মিণী
ছাড়াও খুব গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অনেকদিন পর কাজ করেছেন অরুণ মুখোপাধ্যায়। তা ছাড়াও বিশ্বনাথ বসু অম্বরীশ ভট্টাচার্য, অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায়, আলোকনন্দা রায়কে দেখা যাবে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে।

করোনার কালবেলায় আবিরের এই প্রথম রিলিজ। এর আগে রিলিজ হয়েছিল অসুর। আর এই দুটি ছবি সুপারস্টার জিৎ এর প্রোডাকশন হাউজ থেকে তৈরি। হ্যাঁ, এই ধরনের নতুন ফ্রেশ কনটেন্ট পরপর এনে তিনি চমকে দিয়েছেন দর্শককে। প্রযোজক হিসেবে নতুন আইডিয়া ও নতুন ট্যালেন্টকে সামনে এনে, একই সঙ্গে সাহস ও বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়েছেন জিৎ। রুক্মিণী মৈত্র বলেছেন, তাঁর অভিনীত চরিত্র রুমির জন্য তাঁর নাম জিৎই সাজেস্ট করেছিলেন। পরিচালক সৌভিক কুন্ডুও জিতের দূরদৃষ্টি নিয়ে দারুণ গর্বিত।

.

পরিচালকের কথায়, ‘দুই সন্তানের মা হিসেবে রুক্মিণীকে হয়তো অনেকেই ভাববেন না, কিন্তু জিৎদা আমায় সাজেস্ট করেন। আর পরে দেখা যায়
এটাই মাস্টারস্ট্রোক হয়ে যায়। আবীর-রুক্মিণীর জুটিও জমে গিয়েছে। সোহিনী সেনগুপ্তর কাছে ওয়ার্কশপ থেকে ঘন্টার পর ঘন্টা রিহার্সাল, ঘরকন্নার কাজ শেখা– রুক্মিণী মৈত্র এই চরিত্রটার জন্য প্রচণ্ড পরিশ্রম করেছেন।’ আর তার কাটা শিবু চরিত্রে আবীর চট্টোপাধ্যায়কে ইতোমধ্যেই দর্শক খুব ভালোবেসেছেন। এখানেই একজন পোড়খাওয়া বড় মাপের অভিনেতাকে চেনা যায়। এতগুলো বছর তীক্ষ্ণ বুদ্ধি সম্পন্ন লার্জার দ্যান লাইফ গোয়েন্দা চরিত্র থেকে বেরিয়ে খুব সহজেই আপনার পাড়ার শিবু হয়ে গিয়েছেন আবীর। সবমিলিয়ে এ রকম একটা কমপ্লিট ফ্যামিলি মুভি অনেকদিন পর বাংলা সিনেমায় মুক্তি পেল। আশা করা যায় দর্শকের মুখে আরও হাসি ফোটাবে সুইৎজারল্যান্ড।

আরও পড়ুন: বেলা শেষ হল, সংসার ছেড়ে হোমাপাখি হয়ে উড়ে গেলেন অপু…

এই সময় ডিজিটালের বিনোদন সংক্রান্ত সব আপডেট এখন টেলিগ্রামে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন এখানে।



Continue Reading

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.