ষষ্ঠী, সপ্তমী, অষ্টমী…, পুজোর সবকটাদিন শাড়িতেই সাজতে চান অভিনেত্রী ঋত্বিকা সেন


রণিতা গোস্বামী : পুজো শুরু হতে আর তো মাত্র কয়েকটা দিন। যদিও করোনা আবহে এবার পুজোটা ঠিক বোঝার উপায় নেই। তবে করোনা আবহ হলেও সকলেই টুকটাক পুজোর কেনাকাটা ও প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন। হাজার হোক দুর্গাপুজোয় বাঙালিরা অল্প হলেও আনন্দ করবেন তো বটেই। এবার পুজোর কেনাকাটা, পুজো কাটানোর পরিকল্পনা নিয়ে নানান কথা শেয়ার করলেন অভিনেত্রী ঋত্বিকা সেন। 

ঋত্বিকা সেন : (ফোন ধরে) আমি আসলে এখন চেন্নাইতে আছি। বদ্রীর পরিচালনায় ‘মায়াবাজার’-এর তামিল রিমেকে কাজ করছি, তারই শ্যুটিং করছিলাম, টানা ১৫ ঘণ্টা…। আমার বিপরীতে আছেন অশ্বিন। যেহেতু চেন্নাইতে আছি, তাই দুর্গাপুজোর আবহটা এখনও তাই বুঝে উঠতে পারছি না। তবে পুজোর সময় কলকাতায় ফিরে যাব।

পুজোয় কেনাকাটা কিছু কি করেছ?

ঋত্বিকা সেন : পুজোর কেনাকাটা কিছুই হয়নি। কলকাতায় ফিরে করব টুকটাক। এখানে থেকেও শাড়ি কিনে নিয়ে যেতে পারি। আর কেনাকাটা অবশ্য আমি সারা বছরই প্রচুর করি। এত করি যে বাড়িতে একটা গোডাউন হয়ে গেছে (হাসতে হাসতে)। গতবার যখন চেন্নাইয়ে এসেছিলাম, তখন বেশ কয়েকটা কাঞ্জিভরম নিয়ে গিয়েছিলাম। আবার শান্তিকেতন থেকে বিভিন্ন রকম সুতির শাড়িও কিনেছি। আমি প্রচুর শাড়ি কিনি। আমি এত কেনাকাটা করি যে, বাড়িতে এখন আর আলমারি নয় আমার একটা ড্রেসিং রুমই রয়েছে। যেখানে একটা দেওয়াল জুড়ে শুধুই শাড়ি। দু আলমারি শাড়ি হয়ে যাবে বলতে পারো। এছাড়া মায়ের শাড়ি তো আছেই। (হাসতে হাসতে)

আরও পড়ুন-পুজোয় পুরনো জামা-কাপড়ের সঙ্গে ম্যাচিং করে প্রচুর মাস্ক কিনেছি : ঐন্দ্রিলা সেন

পুজোয় ইন্ডিয়ান নাকি ওয়েস্টার্ন কী পরতে পছন্দ? 

ঋত্বিকা সেন : অবশ্যই শাড়ি। পুজোয় শাড়ি ছাড়া আমার কিছুই ভালো লাগে না। সকাল-বিকেল বিভিন্ন রকম শাড়ি পরতে চাই। (হাসতে হাসতে)। ষষ্ঠী, সপ্তমী, অষ্টমী, নবমী, দশমী বিভিন্ন স্টাইলে শাড়ি পড়ার চেষ্টা করব। যেমন সপ্তমীর দিন লাল পাড় সাদা শাড়ি আটপৌরে করে পরতে পারি। আবার অষ্টমীর দিন একটু গর্জাস কিছু পরলাম। ইন্দো-ওয়েস্টার্ন স্টাইলে শাড়ি ট্রাই করব। এখন বেল্ট দিয়ে একটু অন্যরকম স্টাইলে যে শাড়ি পরা হয়েছে, ওইরকম।

শাড়ির সঙ্গে কী ধরনের জুয়েলারি পরবে?

ঋত্বিকা সেন : আমার সোনার গয়নার থেকেও প্ল্যাটিনামের গয়না বেশি পছন্দ। তবে শাড়ির সঙ্গে সোনার গয়নাও পরতে পারি। আবার জাঙ্ক জুয়েলারিও পরতে পারি, যে শাড়ির সঙ্গে যেটা মানাবে। আমি কানে ঝুমকো পরতে খুব পছন্দ করি। গলায় বিশেষ কিছু পরা পছন্দ নয়, আর হাত ভর্তি চুরি থাকতে হবে।

আর মেকআপ?

ঋত্বিকা সেন : শ্যুট ছাড়া আমি মেকআপ করতে বিশেষ পছন্দ করি না। মুখে সিরাম লাগিয়ে হালকা কমপ্যাক চলতে পারে। বেশি মেকআপ করে মাস্ক পরলে কী হতে পারে বুঝে পারছো (হাসতে হাসতে)? যখন মাস্ক খুলব, তখন একটা অদ্ভুত দাগ হয়ে যাবে। তাই এবার মেকআপ না করাই ভালো, কারণ মাস্ক পরতেই হবে। ম্যাট লিপস্টিক চলতে পারে। আর চোখে আইলাইনার, কাজল এইসব থাকবে।

আরও পড়ুন-সিঙ্গাপুরে পুজো কাটবে, ষষ্ঠী, সপ্তমী, অষ্টমীর দিনে ট্রাডিশনাল সাজই পছন্দ : ঋতুপর্ণা

পুজোটা কাটাবে কীভাবে?

ঋত্বিকা সেন : আমার বাঙ্গুর অ্যাভিনিউ-এর বাড়ির সামনে আমার পাড়াতেই তো পুজো হয়, ওখানেই কাটবে। বাড়ি থেকে নেমেই পুজো। এছাড়া পরিবারের সঙ্গে, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিয়েই কেটে যাবে। এবছর কোনও উদ্বোধন অনুষ্ঠানে যাব না। আর পুজোয় বাবা-মা, ভাইকে নিয়ে একদিন কোনো রেস্তোরাঁতে খেতে যেতে পারি। কারণ, সারাবছর মায়ের হাতের রান্না খাই। পুজোটা অন্তত মাকে একটু ছুটি দেওয়া দরকার। না হলে তো মা সারাবছর, প্রায় প্রতিদিনই আমাদের জন্য হাতা নিয়েই বসে থাকে। কে কখন কী খাবে, সেদিকে মার ভীষণ নজর। মা আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। পুজোটা মাকে একটু তাই রান্নাবান্না থেকে রিলিফ দিতে চাই (হাসি)…





Continue Reading

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.