|

স্ক্যানারে ধরা পড়েনি পিস্তল জানালেন ইলিয়াস কাঞ্চন, তারপর যা ঘটলো

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পিস্তল নিয়ে চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের প্রথম ধাপের নিরাপত্তা তল্লাশি পেরিয়ে যাওয়ার ঘটনায় একজনকে বরখাস্ত করেছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার (৫ মার্চ) দুপুরে ওই ঘটনার সময় সেখানে নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন ফজলার রহমান নামের ওই ব্যক্তি। বেবিচকের জনসংযোগ কর্মকর্তা এ কে এম রেজাউল করিম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামে যাওয়ার জন্য মঙ্গলবার দুপুরে বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালে আসেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)-এর চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। তখন তার সঙ্গে অস্ত্র ছিল। সন্দেহজনক কিছু ধরা পড়লে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেন নিরাপত্তা কর্মীরা। সেখান থেকে ওই যাত্রীর ইমিগ্রেশন পার হওয়ার সুযোগ থাকে না। জানা গেছে, সম্প্রতি শাহ আমানতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বোয়িং ময়ূরপঙ্খী ‘ছিনতাই’ চেষ্টার ঘটনা ঘটে। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই ফের প্রশ্নের সম্মুখীন হলো বাংলাদেশ বিমান। চট্টগ্রামে যাওয়ার জন্য মঙ্গলবার দুপুরে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অভ্যন্তরীণ টার্মিনালে আসেন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)-এর চেয়ারম্যান ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। অভ্যন্তরীণ টার্মিনালের প্রথম গেটের স্ক্যানার মেশিনের নজর এড়িয়ে ৯ এমএম পিস্তল আর ১০ রাউন্ড গুলি ব্যাগে নিয়ে ভেতরে ঢুকে পড়েন তিনি।

এরপর নভো এয়ারের বুকিং কাউন্টারে গিয়ে ইলিয়াস কাঞ্চন জানান, তার সঙ্গে পিস্তল আছে যা স্ক্যানারে ধরা পড়েনি। তিনি পিস্তলটি সঙ্গে নিয়ে চট্টগ্রামে যেতে চান বলে জানা গেছে। নিয়ম অনুযায়ী, কোনো বিস্ফোরক জাতীয় দ্রব্য, লাইটার, দিয়াশলাই, ধারাল কিছু এমনকি সামান্য নেইলকাটার কিংবা কান পরিষ্কার করার ধাতব কাঠি নিয়েও বিমানে ওঠা যায় না। যাত্রীর হাতব্যাগ ও শরীর তল্লাশির সময় এ জাতীয় দ্রব্য ধরা পড়লে সেগুলো জব্দ করা হয়।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.