দুবাই এক্সপোতে অংশ নিতে প্রস্তুত বাংলাদেশ

0 4


কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে প্রায় এক বছর পিছিয়ে যাওয়া এক্সপোদুবাই-২০২০ আগামী
অক্টোবরে হবে।

ছয় মাসব্যাপী এই প্রদর্শনীতে বিশ্বের বড় বড় রাষ্ট্রগুলো তাদের বাণিজ্যিক
সক্ষমতা তুলে ধরবে। সেখানে আড়াই কোটি মানুষের সম্মেলন হবে বলে আশা করছে আয়োজকরা।

ওই প্রদর্শনীতে অংশ নিতে বুধবার সচিবালয়ে বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিদের নিয়ে
প্রস্তুতি সভা করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

প্রদর্শনীর বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ১৮০ দিন মেয়াদের এ্ই প্রদর্শনী বাংলাদেশের অর্থনীতির
শক্তিশালী দিকগুলো তুলে ধরতে এবং দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে কার্যকরি ভূমিকা
রাখতে পারে। তবে সেজন্য বেসরকারি খাতের সক্রিয় অংশগ্রহণ জরুরি।

এফবিসিসিআই সভাপতি জসিম উদ্দিন প্রদর্শনীর বিষয়ে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে
বলেন, সেখানে
বাংলাদেশের জন্য একটি প্যাভিলিয়ন থাকছে। সেই প্যাভিলিয়নে দেশের রপ্তানিমুখী খাতগুলো
ধাপে ধাপে অংশ নেবে। প্যাভিলিয়নের দ্বিতীয় তলায় সেমিনারের ব্যবস্থা থাকবে। সেখানে
শিল্পোদ্যোক্তারা তাদের পণ্য নিয়ে পৃথক উপস্থাপনা/মিটিং করার সুযোগ পাবেন। আবার
ভার্চুয়ালি নিজেদের তুলে ধরার সুযোগ পাবে কোম্পানিগুলো। এক্সোপো ২০২০ দুবাই এ নতুন
বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করবে এফবিসিসিআই।

প্রথম দিকে কোন কোম্পানিগুলো অংশ নিচ্ছে- জানতে চাইলে এফবিসিসিআই
সভাপতি বলেন, কোনো
নির্দিষ্ট কোম্পানি এখনও নির্বাচন করা হয়নি। কারণ ছয় মাসব্যাপী মেলা হবে। সেখানে
প্লাস্টিক, চামড়া, পাটসহ অন্যান্য
খাত অংশ নেবে।

তিনি বলেন, “এতদিন রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো বিষয়টি
দেখভাল করছিল, এফবিসিসিআই
যুক্ত ছিল না। এখন আমরা দায়িত্ব নিয়েছি। একটা সময় সূচি ঠিক করে দেব। কোন কোন সময়
কোন সেক্টর যাবে, সেটা ঠিক করব।

“আমাদের হাতে সময় কম। এই সময়ের মধ্যে বিভিন্ন সেক্টর ও
স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে বসে আমরা সময়সূচি ঠিক করে ফেলব।”

বৈঠকে এফবিসিসিআই সভাপতি আশা করছেন, দুবাইয়ের প্রদর্শনীতে বিশ্ব
উদ্যোক্তারা এক নতুন শক্তিশালী বাংলাদেশকে দেখতে পাবে।

দুবাই প্রদর্শনীতে বিজনেস ফোকাল পারসন হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন এফবিসিসিআইর
সাবেক সভাপতি ও ঢাকা-১০ আসনের সংসদ সদস্য শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন।

তিনি বলেন, এই
আয়োজন বাংলাদেশের সামনে মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকার বিশাল বাজার ধরার সুযোগ এনে
দিয়েছে।

বৈঠকে এফবিসিসিআই সহ-সভাপতি আমিন হেলালীকে এক্সপো কমিটির আহ্বায়ক করা হয়। 

বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ এর পরিচালনায় বৈঠকে চামড়াজাত পণ্য, তথ্য প্রযুক্তি, কৃষিপণ্য, প্রক্রিয়াজাত
খাদ্য ও সবজি রপ্তানিকারক সমিতির নেতা, ডিসিসিআই সভাপতি ও নারী উদ্যোক্তাদের সংগঠন উইয়ের
প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৩ সালে এক
নিলাম প্রক্রিয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল ও তুরস্কের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জিতে আন্তর্জাতিক এই প্রদর্শনী আয়োজনের দায়িত্ব পায় সংযুক্ত আরব আমিরাত।
এর পর থেকে টানা কয়েক বছর ধরে দুবাইয়ে প্রদর্শনীর অবকাঠামো
নির্মাণ করতে আমিরাতকে খরচ করতে হয়েছে কয়েক বিলিয়ন ডলার।

২০২০ সালের অক্টোবরে এই প্রদর্শনী শুরু হওয়ার কথা থাকলেও মহামারীর কারণে তা এক
বছর পিছিয়ে যায়। মহামারীর প্রভাব না কাটলেও এখন সরাসরি ও ভার্চুয়াল দুই মাধ্যমেই
আয়োজন করা হয়েছে। প্রদর্শনীর ছয় মাসে সারাবিশ্ব থেকে ২৫০ কোটি মানুষ অংশ নেবে বলে
আশা করা হচ্ছে।

প্রদর্শনীতে অংশ নিতে কোভিড-১৯ নেগেটিভ রিপোর্ট লাগলেও টিকা নেওয়ার কোনো শর্ত নেই বলে জানিয়েছে ব্লুমবার্গ।





Source link

Leave A Reply

Your email address will not be published.