নয়া চাকরির খোঁজে দেশের ৬০% কর্মী: সমীক্ষা

0 3


হাইলাইটস

  • অগাস্টেও দেশে কর্মহীন হয়েছেন ১৫ লাখ দেশবাসী।
  • করোনা উত্তর কালে আর আগের চাকরি/সংস্থায় থাকা নিরাপদ বোধ করছেন না শতকরা ৫৯% কর্মী।
  • ৬৮% কর্মী পুরোনো কাজের ক্ষেত্রই পাল্টে ফেলে নতুন ক্ষেত্রে ধরনের কাজের সন্ধানে রয়েছেন।

এই সময়: বছরশেষে মোটামুটি ভালো ইনক্রিমেন্ট, বোনাস, মোটা পে-প্যাকেজে মোড়া কর্পোরেট চাকরির গ্লোবকে এক ধাক্কায় বনবন করে ঘুরিয়ে সবকিছু ওলটপালোট করে দিয়েছে করোনা অতিমারি। গত বছর মার্চ থেকে শুরু করলে অঙ্কটা আদতে কত কোটিতে গিয়ে থামবে তা তর্কযোগ্য বিষয়। তবে সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান বলছে, চলতি বছর অগাস্টেও দেশে কর্মহীন হয়েছেন ১৫ লাখ দেশবাসী। এমতাবস্থায় ভবিষ্যতে চাকরির বাজারে টিকে থাকতে কর্মীদের মনোভাব নিয়ে সম্প্রতি ভারতে এক সমীক্ষা চালিয়েছিল অ্যামাজন। যেখানে দেখা গিয়েছে, করোনা উত্তর কালে আর আগের চাকরি/সংস্থায় থাকা নিরাপদ বোধ করছেন না শতকরা ৫৯% কর্মী। নতুন চাকরির খোঁজ করছেন তাঁরা।

অ্যামাজন জব সিকার ইনসাইট সার্ভে শীর্ষক ওই সমীক্ষা থেকে আরও দেখা গিয়েছে, ৬৮% কর্মী পুরোনো কাজের ক্ষেত্রই পাল্টে ফেলে নতুন ক্ষেত্রে ধরনের কাজের সন্ধানে রয়েছেন। পাশাপাশি প্রতি ৩ জনে ১ জন দাবি করছেন, এমন চাকরির খোঁজ চালাচ্ছেন তাঁরা, যেখানে আগের চাকরির থেকে আরও বেশি করে নিজের যোগ্যতা প্রমাণের সুযোগ পাবেন তাঁরা। কারণ অগণিত চাকরি ছাঁটাইয়ের পাশাপাশি দেশে শতকরা ৬৫% কর্মীরই স্যালারি স্লিপ গত দেড় বছরের মেদ কমিয়ে স্লিম হয়েছে বেশ খানিকটা। এমতাবস্থায় নিজেকে আরও অপরিহার্য প্রমাণ না করতে পারলে, পরের কাঁচিটা যে তাঁর উপর দিয়ে যাবে না, এ বিষয়ে নিশ্চিন্ত হতে পারছেন না তাঁরা।

পুজোর মুখে চিন্তা বাড়িয়ে হঠাৎ দামি সোনা, জানুন আজ কলকাতায় কত
সমীক্ষকদের দাবি, চাকরি খুঁজছেন যাঁরা, তাঁদের মধ্যে ৭৫% মনে করছেন, এতদিন যে যোগ্যতা নিয়ে কর্মক্ষেত্রে রাজা-উজির মেরেছেন তাঁরা, তা আগামী ৪-৫ বছরের মধ্যে স্ক্র্যাপের তালিকায় চলে যাবে। ফলে বাজারের ধারা বুঝে নিজেদের সিভি-তে সাম্প্রতিক এবং আধুনিক প্রযুক্তি এবং শিক্ষাগত যোগ্যতা বাড়ানোর পক্ষপাতী এঁদের মধ্যে শতকরা ৯০ শতাংশই। ৪৫% যেখানে মনে করছেন প্রযুক্তিগত এবং ডিজিটাল স্কিল না সময়ের সঙ্গে বাড়ালে আগামী দিনে টিকে থাকা শক্ত হবে, সেখানে ৩৮% মনে করছেন মার্কেটিং স্কিলে শানই চাকরির বাজারে আগামী দিনে বেঁচে থাকার সরবিট্রেট। শুধু কর্মীদের দিক থেকেই নয়, নতুন শিক্ষা অস্ত্রে কর্মীদের বলীয়ান করতে দেশের ৭৬% চাকরিজীবীকে ইতিমধ্যেই প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে সংশ্লিষ্ট সংস্থা কর্তৃপক্ষের তরফে। এঁদের মধ্যে শতকরা ৯৭% আবার মনে করছেন, দক্ষতা বাড়ানোর জন্য আরও শিক্ষার প্রয়োজন রয়েছে।

চলতি বছরের থেকে বেশি বেতন 2022 সালে, দাবি সমীক্ষায়
নতুন চাকরিতে আবেদনের ক্ষেত্রে কস্ট-টু-কোম্পানি অবশ্যই বড় বিবেচ্য কর্মপ্রত্যাশীদের কাছে। ৫৫% বেশি মাইনের চাকরি খুঁজলেও তাকে ছাপিয়ে ৫৬% চাকরিতে আগের থেকে বেশি নিশ্চয়তায় জোর দিতে চাইছেন করোনা অধ্যায়ের পর। ৪৭% আবার বেশি করে চাইছেন স্বাস্থ্য ও সুরক্ষাবিধি মেনে জায়গায় চাকরি করতে।



Source link

Leave A Reply

Your email address will not be published.