বান্ধবীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার গুঞ্জন! লিয়েন্ডার-মহেশের সম্পর্কের ছেদ পড়েছিল একসময়

0 3


গত সপ্তাহে জি-ফাইভে মুক্তি পেয়েছে লিয়েন্ডার পেজ এবং মহেশ ভূপতির ডকুমন্টারি সিরিজ ‘ব্রেক পয়েন্ট’। টেনিস তারকাদের কিছু বিস্ফোরক স্বীকারোক্তি নিয়ে এই সিরিজ। স্বামী-স্ত্রী জুটি নিতেশ এবং অশ্বিনী আইয়ার তিওয়ারি পরিচালিত এই সিরিজ, গ্র্যান্ড স্ল্যাম শিরোপা জেতার জন্য ভারতের প্রথম টেনিস দল এবং তাদের মধ্যে বিতর্কের বর্ণনা দেয়।

একটি দৃশ্যে, লিয়েন্ডার এবং মহেশ প্রকাশ করেছিলেন যে কীভাবে তাদের পার্টনারশিপ একে অপরের প্রতি অবিশ্বাসের কারণে শেষ হয়েছিল। ১৯৯৯ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেন মেনস ডাবলস শিরোপা জেতার পর, লিয়েন্ডার এবং মহেশ বিভিন্ন সন্দেহ, অহং সমস্যা এবং ভুল বোঝাবুঝির কারণে আলাদা হয়ে যান। তাঁদের মধ্যে এতটাই সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল, পরের বছর ফ্রেঞ্চ ওপেন খেলতে আলাদা পার্টনারশিপ বেছে নিয়েছিলেন তাঁরা। যদিও এই বিষয়টা দেখে তাঁদের কোচ মোটেই ততটা খুশি ছিলেন না। 




লিয়েন্ডারের কোচ, বব কারমাইকেল তাদের ম্যাসেজ রুমে নিয়ে গিয়ে একান্তে বসিয়ে নিজেদের সমস্যার সমাধান করতে বলেছিলেন। তারা নিজেরাও সমস্যার সমাধান করতে চেয়েছিলেন। মহেশ লিয়েন্ডারকে জানিয়েছিলেন, তিনি এমন কিছু জিনিস এবং সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন যেগুনো তাকে খুব দুঃখ দিয়েছিল। 

লিয়েন্ডারের কথায়, ‘আমার জন্য ১৯৯৯ সালটা খুব কঠিন ছিল। অনেক কিছু জিনিস ছিল যেগুলো দেখে আমি ভেঙে পড়েছিলাম। আমার টেনিস পার্টনারের সঙ্গে আমার প্রেমিকার ঘনিষ্ঠতার গুঞ্জন শুনে আমার জীবনের খুব সংবেদনশীল পরিস্থিতিতে ছিলাম। আমি গুঞ্জন শুনেছিলাম মহেশ ওর কাছাকাছি আসছিল খুব’। 

মহেশ বলেন, ‘আমি তার দিকে তাকিয়ে বললাম, ‘লিয়েন্ডার তুমি কি সিরিয়াস? সত্যিই কি মন থেকে তুমি এটা বিশ্বাস করো আমি এগুলো করতে পারি? ও হ্যাঁ বলতেই আমি বুঝতে পারলাম, যতটা ভেবেছিলাম তার চেয়ে অনেক বেশি ভেঙে গেছে। এটিই ছিল ফ্রেঞ্চ ওপেন আলোচনার সমাপ্তি’।

লিয়েন্ডার যেন উত্তর খুঁজছিল। ‘উঠে ঝড়ে বেগে যেন ঘর থেকে বেড়িয়ে গেল ও। ও কথোপকথন থেকে বেরিয়ে আসে। এমনকি প্রশ্নের উত্তরও দেয়নি’। লিয়েন্ডার যে নারীর নাম উল্লেখ করেছিলেন তা অবশ্য জানা যায়নি।

অভিনেত্রী মহিমা চৌধুরীকে ডেট করছিলেন লিয়েন্ডার পেজ। কিন্তু ২০০০ সালের গোড়ার দিকে তাঁদের বিচ্ছেদের খবর প্রকাশ্যে আসে। মহিমা পরে প্রকাশ করেছিলেন, তিনি সঞ্জয় দত্তের দ্বিতীয় স্ত্রী রিয়া পিল্লাইয়ের সঙ্গে থেকে তার সাথে প্রতারণা করছিলেন।

পরে লিয়েন্ডার এবং রিয়ার এক কন্যা সন্তান হয়। দুজনের সম্পর্কের বিচ্ছেদও হয়েছে দীর্ঘদিন আগে। প্রাক্তন টেনিস তারকা বর্তমানে অভিনেতা কিম শর্মার সাথে ডেটিং করছেন।

এদিকে মহেশ ২০০২ সালে শ্বেতা জয়শঙ্করের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এবং সাত বছর পর তারা আলাদা হয়ে যান। ২০১১ সালে তিনি অভিনেত্রী লারা দত্তের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের একটি মেয়েও আছে, সায়রা।

 

 



Source link

Leave A Reply

Your email address will not be published.