‘পারলে মদনদার সঙ্গে দেখা করে এস’, মির্চি খুশির পুজোতে দুর্গার কাছে আবেদন শিবের!

0 10


এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: মদনদার ম্যাজিকে কুপোকাত খোদ মহাদেব। সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো তাঁকে ফলো করেন স্বয়ং শিব। তাই বাপের বাড়ি গিয়ে মা দুর্গা Do’s and Don’t-এর তালিকায় মদনদার সঙ্গে দেখা করাটাও ঢুকিয়ে দিয়েছেন তিনি। মর্ত্যের উদ্দেশে রওনা হওয়ার আগে শেষমুহূর্তে এমনই আলোচনায় মাতলেন শিব-দুর্গা। কৈলাসের অন্দরমহলে কান পেতে মির্চি বাংলা শুনতে পেল এমনই কথোপকথন।

সাতদিনের জন্য বউ বাড়ি ফাঁকা করে বাপের বাড়ি যাচ্ছে। সঙ্গে যাচ্ছে ছেলে-মেয়ে আর চামচে অসুরটাও। শিবের তো আনন্দের শেষ নেই। কিন্তু মা দুর্গার সামনে পড়তেই শুরু আদ্যোপান্ত বাঙালি বর-বউয়ের চিরাচরিত দোষারোপ। বরের খুশি দেখে বউ বসে বসে ভুঁড়ি বাগানোর খোঁটা দিচ্ছে তো তার পালটা শিবের কত কাজ করেছি সেই ফিরিস্তি। দুর্গা লকডাউনে গোটা কৈলাসের কাজ একা হাতে করলেও তাঁর খেয়াল রাখতে থুড়ি দুর্গার ম্যানিকিউরের খেয়াল রাখতে শিব নিজে হাতে নাকি খাইয়েও দিয়েছেন। এসবের মাঝে মা দুর্গা যাতে তাড়াতাড়ি মর্ত্যে পৌঁছান তার জন্য রসিকতা করে নেতাজির ঘোড়া ধার নেওয়ারও চিন্তা করেছেন শিব।

বাবার কথা তুলে ধরে অ্যালঝাইমার্স নিয়ে বিশেষ বার্তা মীরের
বাপের বাড়ি রওনা হওয়ার আগে হর-পার্বতীর একান্ত আলাপচারিতার সাক্ষী রইল মির্চি খুশির পুজো। মীর রূপী শিবের সঙ্গে দুর্গা সাজে শ্রীয়ের খুনসুটি। সঙ্গে অসুর সায়কের ফোড়ন। মহালয়া উপলক্ষে মিষ্টি এক ভিডিয়ো শিব-দুর্গার দাম্পত্যের এমনই মজার উপস্থাপনা করেছে রেডিও মির্চি। তাতে সোনায় সোহাগা মীর-শ্রী ও সায়কের কমিক টাইমিং।

মির্চির খুশীর পুজোর স্ক্রিপ্টেও জায়গা পেয়েছে কোভিড সতর্কবিধি। মর্ত্যে গিয়ে অসুর মাস্ক খুলে ঘুরলে তার জন্য চড়াম চড়াম থাপ্পড় ধার্য করেছেন মহাদেব। দুটো ডোজ ভ্যাকসিনের পরও মা দুর্গাকে মাস্ক পরে সতর্ক থাকার পরামর্শও দিয়েছে তিনি।

মির্চির এমন মিষ্টি উপস্থাপনায় মন ভরেছে নেটিজেনদের। কেউ করেছেন ভূয়সী প্রশংসা তো উৎসবের মুডে থাকা বাঙালি প্রাণ খুলে এসেছেন। কোনও কোনও ধর্মান্ধ নেটিজেন এমন নিরামিষ আনন্দময় উপস্থাপনাতেও খুঁজেছেন ধর্মের গন্ধ। সনাতন হিন্দু ধর্মের অপমান বলেও রব তুলেছেন নেটিজেনদের একাংশ।

দুর্গাপুজোর স্মৃতিচারণা করে ধর্মীয় গোঁড়ামির শিকার! হতাশ মীর

শিব সেজে প্রথম নয়, দুর্গাপুজো নিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়ে এর আগেও নেটপাড়ায় আক্রমণের মুখে পড়েছিলেন মীর। সম্প্রতি একটি ব্র্যান্ডের বিজ্ঞাপনের প্রচারে দেখা গিয়েছিল মীরকে। সেখানেই নিজের দুর্গাপুজোর স্মৃতির কথা শেয়ার করে আক্রমণের মুখে পড়েন। সেই পোস্টের সঙ্গে এই ধরনের মন্তব্য পেয়ে তিনি যে হতাশ, তাও উল্লেখ করেন।মীর বলেন, ‘অশেষ ধন্যবাদ তাঁদের, যাঁরা বার বার মনে করিয়ে দেন আমি শুধুই একজন মুসলমান, আর অন্য কোনো পরিচয় নেই মীরের’।



Source link

Leave A Reply

Your email address will not be published.