ধারাবাহিকে ফিরছেন কাঞ্চন

0 6


হাইলাইটস

  • বাংলা ধারাবাহিকে ফিরছেন কাঞ্চন মল্লিক।
  • ছবি বা অন্য কাজের জন্য এ ক’দিন খবরে ছিলেন না তিনি।
  • কাঞ্চন যে ধারাবাহিকটি করবেন, সেটির নাম ‘বসন্ত বিলাস মেসবাড়ি’।

ভাস্বতী ঘোষ

বাংলা ধারাবাহিকে ফিরছেন কাঞ্চন মল্লিক। উত্তরপাড়া থেকে বিধানসভা নির্বাচনে লড়ে বিধায়ক হয়েছেন এ বছর। তারপর ব্যক্তিগত জীবনে স্ত্রীর সঙ্গে মতবিরোধের জেরে বারংবার খবরে এসেছেন। বরং ছবি বা অন্য কাজের জন্য এ ক’দিন খবরে ছিলেন না।

অভিনেতার কাছে ছবি বা ওয়েব সিরিজের প্রস্তাব আসে নিয়মিত। তা হলে ধারাবাহিক কেন? কাঞ্চন স্পষ্ট করলেন, ‘ক’ দিন মানুষ মোবাইলে দেখেছেন। এ বার না হয় তাঁদের ড্রয়িংরুমে ক’ দিন থাকি। অভিনয়ের অভ্যাসটা দরকার’। শুধুমাত্র ছবি করে কি দর্শকের থেকে তেমন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যাচ্ছে না?

‘আসলে লকডাউন আমাদের সবটা শিখিয়েছে। পাঁচটা ছবির কাজ সেরে বসে আছি। এতদিন পর পুজোতে পরমব্রতর পরিচালনায় ছবিটা আসছে। তাতে আমি খুশি। কিন্তু বাকি ছবিগুলোর কী হবে জানি না। কোনও বাংলা ছবি মুক্তি পেলেও সেটা ক’ জন দেখতে যান, তা নিয়ে সংশয় আছে’।

‘ম্যাডক্সে বসে আর আড্ডা দেওয়া হয় না’, আক্ষেপ সন্দীপ্তার
কাঞ্চন যে ধারাবাহিকটি করবেন, সেটির নাম ‘বসন্ত বিলাস মেসবাড়ি’। কলকাতার এক মেস বাড়ির গল্প। দেশের নানা প্রান্তের মজার সব লোকজন জড়ো হয় সেখানে। রাহুল আর মহুয়া দুই প্রধান চরিত্র। তারা কাছাকাছি আসে। মেস বাড়িতেই তাদের দেখা হয় কাঞ্চনের চরিত্রটির সঙ্গে। প্রোমোটার এসে বনেদি বাড়ি ভেঙে শপিং মল তুলতে চায়। সে পারবে কী? গল্প এগোবে তাই নিয়ে। সাত বছর পর এই ধারাবাহিকে ফিরছেন কাঞ্চন। আবার বহুদিন পর বাংলা ধারাবাহিকে দেখা যাবে অভিনেত্রী কমলিকা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও।

কিন্তু বিধায়কের কাজ সামলে ধারাবাহিকে সময় দেবেন কী করে অভিনেতা? ‘ইচ্ছে থাকলে উপায় হয়, এই কথাটা এখন অনুভব করছি। আমি প্রযোজনা সংস্থাকে বলে নিয়েছি প্রতি মাসে নির্দিষ্ট সংখ্যক দিনের বেশি শুটিং করতে পারবো না। বাংলায় সাংসদরাও অভিনয় আর রাজনীতির কাজ দু’টোই সামলাচ্ছেন। আমিই বা কেন পারবো না? আমি দু’টোকেই জনসেবা মনে করি। কোনও মানুষ আমার কাছে প্রয়োজন নিয়ে এলে তাঁর দিকে সাহায্যের হাত বাড়ানো আমার দায়িত্ব। আবার মানুষকে বিনোদন দেওয়াটাও প্রয়োজন’, উত্তর কাঞ্চনের।

ধারাবাহিকে কৌতুক-অভিনেতা কাঞ্চনের স্বাদ মিলবে, আঁচ করা যায়। এ দিকে ব্যক্তিগত জীবনে গত ক’ মাসে তিনি কি হাসিখুশি ছিলেন? অন্য একটি সম্পর্ককে ঘিরে অভিনেত্রী স্ত্রী পিঙ্কি বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর তীব্র মতবিরোধ জনসমক্ষে আসে। এ রকম অবস্থায় শুটিং ফ্লোরে ফেরার জন্য কাঞ্চন কী ভাবে নিজেকে মোটিভেট করলেন? একটু ভেবে কাঞ্চন খোলসা করলেন, ‘ভাবনাটা চার্লি চ্যাপলিনের। কৌতুক অভিনেতার কান্না বৃষ্টির জল ছাড়া কেউ জানে না…আমি অভিনেতা। তাই এই প্রশ্নটা আসছে। বাংলার কত বাড়িতে মানুষ এমন সমস্যার সম্মুখীন হন। যন্ত্রণায় থাকেন। কিন্তু তাঁদের বাঁচতে হয়। ঘুরে দাঁড়াতে হয়। জীবন থেমে যায় না। এটা ভাবি বলেই মনে হয়, শুটিং ফ্লোরে গিয়ে দাঁড়ালে নিজের কাজটা ঠিক করতে পারবো’।

‘পারলে মদনদার সঙ্গে দেখা করে এস’, মির্চি খুশির পুজোতে দুর্গার কাছে আবেদন শিবের!
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি যা করছেন, তা কি ঠিক করেছেন? বিধায়ক হিসেবে কাজ কি ঠিক হচ্ছে? এ সব ঘিরে যেমন প্রশংসা আছে, তেমনই আছে সমালোচনা। সে সব সামাল দেন কী ভাবে? কাঞ্চনের উত্তর, ‘কে কী বললো তা নিয়ে একদম ভাবি না। কুছ তো লোগ কেহেঙ্গে, লোগো কা কাম হ্যায় কেহেনা…’



Source link

Leave A Reply

Your email address will not be published.