‘দিব্যা ভারতীর সঙ্গে নেশা করেছিলাম’, আরিয়ানের পাশে দাঁড়িয়ে মাদক আইন বদলের দাবি সলমানের প্রাক্তনের

0 16


হাইলাইটস

  • ‘কোন বাচ্চা মাদক নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করে না?’
  • আরিয়ান খানের সমর্থনে ইনস্টাগ্রামে খোলা চিঠি লিখলেন সলমন খানের প্রাক্তন প্রেমিকা।
  • গত রবিবার স্টার কিডকে গ্রেফতার করেছে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো।

এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: ‘কোন বাচ্চা মাদক নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করে না?’ আরিয়ান খানের সমর্থনে ইনস্টাগ্রামে খোলা চিঠি লিখলেন সলমন খানের প্রাক্তন প্রেমিকা। গত রবিবার ২৩ বছরের ‘স্টার কিড’-কে গ্রেফতার করেছে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। সোশ্যাল মিডিয়ায় বিষয়টি নিয়ে প্রতিবাদ জানালেন অভিনেত্রী সোমি আলি। তাঁর কথায়, ‘বাচ্চাটিকে বাড়ি যেতে দিন এবার। মাদক নেওয়া অনেকটা পতিতাবৃত্তির মতোই। সমাজ থেকে কোনওদিনই এই দুটো জিনিস ধুয়েমুছে ফেলা সম্ভব নয়। সেই কারণেই দু’টি জিনিসকেই অপরাধের আওতা থেকে বের করে দেওয়া উচিত। বাচ্চারা তো বাচ্চাই হয় নাকি! ওরা ভুল করে ফেলে। কেউই তো সাধু নয়। ১৫ বছর বয়সে দিব্যা ভারতীর সঙ্গে আন্দোলন ছবির শ্যুটিং চলাকালীন নিষিদ্ধ মাদক সেবন করেছিলাম। আমার কিন্তু কোনও আক্ষেপ নেই!’

সোমির সংযোজন, ‘আমাদের দেশের আইনব্যবস্থা আরিয়ানকে ব্যবহার করছে মাত্র। ব্যবহার করে বুঝিয়ে দিচ্ছে যে একটি বাচ্চাকে কোনও কারণ ছাড়াই হেনস্থা করা যায়। ধর্ষক কিংবা খুনীদের ধরার ক্ষেত্রে প্রশাসন তো এতটা তৎপর হয় না? সেই কাজটি করুন না!’

আরিয়ানকে সমর্থন করে সোমি আরও বলেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ১৯৭১ সাল থেকে শুধুমাত্র মাদকের জন্য যুদ্ধ চলছে। তবু সে দেশে যাঁরা মাদক সেবন করতে চায়, তাঁরা সহজেই ইচ্ছেপূরণ করতে পারে। আমার কষ্ট হচ্ছে শাহরুখ এবং গৌরীর জন্য। ওঁদের জন্য প্রতিনিয়ত প্রার্থনা করছি। আর আরিয়ান, তুমি কোনও ভুল করনি। ন্যায়বিচার হবেই খুদে!’

Aryan Khan Bail: আরিয়ান খানের জামিন নামঞ্জুর!
উল্লেখ্য, শনিবার বিকেলে মুম্বই উপকূলের একটি ক্রুজ পার্টিতে আচমকা হানা দিয়ে আরিয়ান খান সহ আটজনকে আটক করেছিল NCB। দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের পর রবিবার দুপুরে তাঁদের গ্রেফতার করা হয়। NCB এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে ১৩ গ্রাম কোকেন, ২১ গ্রাস চরস, ২২টি MDMA পিল, পাঁচ গ্রাম MD উদ্ধার হয়েছিল।

শাহরুখ পুত্র আরিয়ান খানকে ৭ অক্টোবর অবধি NCB হেফাজতে রাখা হয়েছিল। তবে বৃহস্পতিবার তাঁকে জেল হেফাজতে পাঠায় আদালত। করোনার কারণে জেল হেফাজতে পাঠানোর নিয়ম বদলে গিয়েছে। আর সেই কারণেই ওইদিন রাতে আরিয়ানকে NCB অফিসে রাখা হয়েছিল। শুক্রবার তাঁর অন্তর্বর্তী জামিনের মামলার শুনানি ছিল। এদিন সেই আবেদন খারিজ হয় এবং অবশেষে জেল হেফাজতেই পাঠানো হয় আরিয়ান খান সহ তাঁর বন্ধুদের।



Source link

Leave A Reply

Your email address will not be published.